রঙ্গের দুনিয়া সৌদি আরব

মোবাইল ফোন কেড়ে নিয়েছে ঈদের আনন্দ, বদলে গেছে উৎসবের ধরণ

শেয়ার করুন

সৌদি আরবের বড় বড় শহরগুলোতে যখন জীবনধারা বদলে গিয়ে ঈদ উদযাপনের ধরণেও পরিবর্তন এসেছে, তখন ছোট ছোট শহর আর গ্রামগুলো ঈদ উদযাপনের সেই সুন্দর অতীতকে আকড়ে ধরে থাকার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। গ্রাম এবং দূরবর্তী এলাকার বয়স্ক বাসিন্দাদের সাথে কথা বললে তারা জানান, মোবাইলের মেসেজ এবং যোগাযোগ ঈদের আনন্দকে কেড়ে নিয়েছে। আগে ঈদ আনন্দ মানেই ছিল পারষ্পরিক সহযোগিতা, ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় এবং একে অপরের বাড়িতে ঘুরে বেড়ানো। কিন্তু জীবনযাপনের ধরণ বদলে যাওয়ায়, সেসবও এখন অতীত হয়ে গেছে। হামদি আল-হুজাইলি নামে শতবর্ষী এক বৃদ্ধ বললেন-

‘আগের দিনে একটা বিশেষ কায়দায় পুরো এলাকার লোকজনের কাছে ঈদুল ফিতরের ঘোষণা দেয় হতো। তারা পাহাড়ের চূড়ায় আগুন জ্বালিয়ে দিতেন, যার মাধ্যমে অনেক দূরে বসবাসকারী মানুষও তা দেখতে পেতো এবং জানতো যে, ঈদ এসে গেছে।’

তারপর একটা সময় বন্দুক থেকে গুলি ছোড়ার মাধ্যমে ঘোষণা করা হতো যে, পরের দিন শাওয়াল মাসের প্রথম দিন এবং রমজান মাসের শেষ।

‘এমনটা করা হতো যখন এলাকার সবার কাছে গ্রহণযোগ্য, সৎ, বিশ্বস্ত এবং সম্মানিত কেউ নিশ্চিত করতো যে ঈদের চাঁদ দেখা গেছে। তারপর সবাই তাকবীর ধ্বনি দিতো এবং ঈদের নামাজের প্রস্তুতি শুরু করতো। প্রত্যেক গোত্র অন্য অন্য গোত্রগুলোর কাছে ঈদ আসার খবর পৌঁছে দিতো। এর মাধ্যমে পারষ্পরিক সৌহার্দ্য এবং সম্প্রীতির উৎসবে পরিণত হতো ঈদ। কিন্তু মোবাইল ফোন আসার পর থেকে এসব উঠে গেছে।’

মোবাইল ফোন বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বিস্তৃতির কারণে শুধু সৌদি আরবে নয়, বাংলাদেশে বা আরো অনেক দেশেই হারিয়ে যাচ্ছে অনেক সামাজিক রীতিনীতি, আনন্দ, আন্তরিকতা বা উৎসবের ধরণ।

Special Correspondent

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.