Featured এশিয়া ভারত

ভারতের লোকসভা নির্বাচন; বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক

ভারতে ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে ১১ এপ্রিল থেকে ১৯ মে পর্যন্ত ৭টি ধাপে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ৫৪৩ টি আসনের ১৬ তম লোকসভা নির্বাচন-২০১৯ গত ১৯ মে সমাপ্ত হয়েছে। বুথ ফেরত নির্বাচনী জরিপ থেকে যে তথ্য পাওয়া গেছে, তাতে দেখা যাচ্ছে, ক্ষমতাসীন দল বিজেপি এগিয়ে আছে।

চা-ওয়ালা থেকে মহাভারতের ‘চৌকিদার’ হয়েছেন মোদী। এবারের নির্বাচনী ইশতেহারে ক্ষমতাসীন উগ্র হিন্দুত্ববাদী দল বিজেপির গুরুত্বপূর্ণ প্রতিশ্রুতি ছিল যে, আবারো ক্ষমতায় এলে, অযোধ্যায় বাবরী মসজিদের স্থানে রামমন্দির নির্মাণের কাজ সমাপ্ত করা এবং বাংলাদেশের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখা ।

এছাড়াও প্রায় ১৩০ কোটি জনসংখ্যার দেশে ৯০ কোটি ভোটারের মন জয় করার উদ্দেশে এবারের নির্বাচনী ইশতিহারে ৪৫ পাতার ৭৫ টি অঙ্গিকার করেছেন ক্ষমতাসীন এই দলটি। হিন্দু সংখ্যাগরিষ্ঠ এই দেশে হিন্দু ভোটারদের আস্থা অর্জনের জন্য ধর্মকে ব্যাবহারের বিষয়টি ছিল লক্ষনীয়।

পূর্বের নির্বাচনী ইশতেহারে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি এবং কর্মসংস্থান তৈরির যে আশ্বাস মোদি সরকার দিয়েছিল, তা বিন্দু মাত্র বাস্তবায়িত হয়নি। যেখানে জিডিপির প্রবিদ্ধির হাঁর ৬.৬ থেকে ৭ নেওয়ার কথা ছিল সেখানে হয়েছে তার উল্টো, যেখানে ঘরে ঘরে কর্ম সংস্থান তৈরি করার কথা ছিল সেখানে বেকারত্বের হার গিয়ে দাঁড়িয়েছে গত ৪৫ বছরের মধ্যে সব চেয়ে বেশি।

গত ফেব্রুয়ারিতে ভারত শাসিত কাশ্মীরে পাকিস্তান ভিত্তিক একটি জঙ্গী সংগঠনের আত্মঘাতী আক্রমণে অন্তত ৪০ জন ভারতীয় প্যারা মিলিটারি আর্মি মারা যাওয়ার পর, জাতীয় নিরাপত্তার এই বিষয়টিকে বগলদাবা করে নির্বাচনের অন্যতম প্রধান একটি ইস্যু হিসেবে মানুষের নজর কারার চেষ্টা করছেন ক্ষমতাসীন মোদী সরকার। অর্থনীতির নাজুক পরিস্থিতি এড়িয়ে গিয়ে যুদ্ধ ও ধর্মকে পুজি করে নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়েছেন বিজেপি সরকার।

অন্যদিকে প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেস তার অভ্যন্তরীণ ও দলীয় চিন্তা চেতনাকে জাগ্রত করে নিজের ঘর ঠিকমত গোছাতে পারেনি। দলের নীতি নির্ধারকেরা প্রিয়াঙ্কাকে দলের চালকের আসনে নিয়ে এসে সমর্থকদের মধ্যে উৎসাহ ও উদ্দীপনা আরও বাড়াতে চেয়েছিলেন কিন্তু তা বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়ে উঠেনি।

মোদির নির্বাচনী কৌশল, মিডিয়া কাভারেজ আর উগ্র হিন্দুত্ববাদী ধর্মীয় কৌশলের কাছে আবারো দুধের বোতলধরা শিশুটির মতই থিতু অবস্থার সম্মুখীন হয়েছে এক সময়ের ভারতের অন্যতম প্রভাবশালী রাজনৈতিক দল কংগ্রেস।

বাংলাদেশ ভারতের পাশ্ববর্তী রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে অন্যতম। কূটনৈতিকভাবেও ভারতের কাছে বাংলাদেশ একটি গুরুত্বপূর্ণ দেশ। মোদি বলেছিলেন- পাশ্ববর্তী দেশ বাংলাদেশের সাথে সব সময়ের জন্য সু-সম্পর্ক বজায় থাকবে, কিন্তু বাস্তবে সেটা ঘটেনি। বাংলাদেশ ভারতকে বিনা শুল্কে ট্রানজিট দিয়েছে, উল্ফা প্রধান কে ধরে ভারতের কাছে হস্তান্তর করেছে, ছিটমহল বিনিময় করাসহ অন্যান্য প্রচুর সুযোগ সুবিধা দিয়েছে।

পক্ষান্তরে এর প্রতিদান হিসেবে নিত্য দিনেই সীমান্তে লাশের উপহার দিচ্ছে। গতবছরের তুলনায় এ বছরের শুরু থেকেই এই নির্মম হত্যাযজ্ঞ বহুগুণে বৃদ্ধি পেয়েছে এবং তিস্তা চুক্তির ন্যায্য পানিও আমরা ঠিকমত পাছি না।

লক্ষণীয়, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে দ্বি-পাক্ষিক বাণিজ্য ঘাটতির আর্থিক পরিমাণ ছিল ৯৩০ কোটি ডলার। ভারত বিশ্বের যে কয়টি দেশে পণ্য রপ্তানি করে বাংলাদেশ তার অন্যতম। অন্যদিকে বাংলাদেশের কাছ থেকে আশানুরূপ পণ্য আমদানি করেনি ভারত। ফলে বাংলাদেশের সাথে ভারতের বাণিজ্যিক ঘাটতি আকাশ সমান।

এছাড়া রোহিঙ্গা সংকট বাংলাদেশে ব্যাপক আকার ধারণ করেছে। রোহিঙ্গা ইস্যুতে ভারতের কাছে তেমন কোন সাহায্যই পাওয়া যায়নি, অথচ রাখাইন রাজ্যে ভারতসহ চীনের ব্যাপক ইনভেস্টমেন্ট রয়েছে। পাশ্ববতী দেশ হিসাবে তেমন উল্লেখযোগ্য সাহায্য আসেনি। অপরদিকে খেয়াল করলে দেখা যাবে পাকিস্তান যেমন আমেরিকা থেকে সাহায্য সহযোগিতা পাচ্ছে, ঠিক একই ভাবে চীন থেকেও সময় উপযোগী সকল ধরণের সহযোগিতা পাচ্ছে।

চিন্তার বিষয় হল, ভারতে আবার যদি নরবড়ে সরকার গঠিত হয় তবে, সেটা বাংলাদেশর জন্য আভিশাপের কারণ হয়ে দাড়াতে পারে? তবে, যে দলেই ক্ষমতায় আসুক না কেন আমরা আশা করব, ভারতের নতুন সরকার বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়ন করাসহ বাণিজ্যিক বৈষম্য দূর করার জন্য দৃঢ়তার সাথে কাজ করে যাবে।

ভারতের লোকসভা নির্বাচন ২০১৯ এ নির্বাচিত সরকারকে অগ্রিম আন্তরিক অভিনন্দন। সেই সাথে আশা করছি- নব নির্বাচিত সরকার দ্বি-পাক্ষিক চুক্তি, সমান্তরাল বানিজ্যচুক্তি, সীমান্ত হত্যা বন্ধ, তিস্তার পানি বন্টন, পণ্যের শুল্কমুক্ত রপ্তানির সুযোগসহ অন্যান্য বিষয়গুলো নিবিড়ভাবে পর্যালোচনা ও বাস্তবায়নের মাধ্যমে প্রতিবেশী দেশ বাংলাদেশের সাথে সুসম্পক বজায় রাখার প্রয়াস করবে।

  • মুহাম্মদ আল আমিন, গ্রীস 

আরও পড়ুন- কামা রিতার দখলে ২৪ বারের এভারেস্ট জয়ের বিশ্ব রেকর্ড

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.