Featured ইউরোপ

স্বপ্নের প্রবাস; “শুধু পাস্তা খেয়ে বছর পার করেছি”

শেয়ার করুন

প্রবাস জীবনে অনেক অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হতে হয়। যারা পরবাসী শুধু তারা এই বিষয়টি সম্পর্কে খুব ভালো জানেন। প্রায় সাত বছর হয় ইতালীতে পরবাসী হয়েছি। ইতালিতে আসার হুট করে চাকরি হারিয়ে বেকার হয়ে পড়লাম।

ভাগ্যক্রমে এক ব্রাজিলীয়ান মহিলার সঙ্গে পরিচয় সূত্রে নতুন একটি কাজের সন্ধান পেলাম। তখন ২০১৮ সালের রমজান মাস চলছে। সিসিলি দ্বীপ বিমানবন্দর থেকে তুরিন বিমানবন্দরে কাজে যোগ দিতে যাএা শুরু করলাম।

প্রায় দুই ঘন্টা উড্ডয়নের পর তুরিন বিমানবন্দর পৌঁছালাম। তারপর ট্রেন এবং বাসে করে গন্তব্যে উপস্থিত হলাম। কাজ করতে হবে একটি আবাসিক হোটেলে। এদিকে তখন ইফতারের সময় হয়ে গেছে, ইফতার করলাম একটি পিৎজা খেয়ে। সারাদিনের ক্লান্তি নিয়ে ইফতার সেরেই ঘুমের রাজ্যে হারিয়ে গেলাম। একটি পিৎজা খেয়ে ইফতার ও সেহরি।

পরের দিন সকালে কাজে যোগদান করলাম। আট ঘন্টা হোটেলে কাজ করলাম। সেদিন ইফতার করি পাস্তা খেয়ে সঙ্গে ফলমূলও ছিল। এভাবে পাস্তা ও ফলমূল খেয়ে দশটি রোজা পালন করলাম। জন্মসূত্রে ভাত-মাছ খেয়ে বড় হয়েছি, অথচ কাজের জন্যে দুই বছর ভাত খেতে পারিনি।

এরই নাম প্রবাস জীবন। পাস্তা আর পাস্তা খেয়ে এক বছর পার করে দিলাম। ঈদের দিনও রুটিন মাফিক পাস্তা খেয়ে দিন পার করেছি। এক সময় মনে হয় নেপোলিয়নের বাণীটি উল্টে করে বলি এভাবেই “আমাকে একমুঠো ভাত দাও, তোমাকে একটি পৃথিবী দেবো”। হ্যাঁ সত্যি, আমার কাছে একমুঠো ভাতের মূল্য একটি পৃথিবী সমতুল্য।

তবে আত্মতৃপ্তি এটিই যদিও ভাত না খেয়ে আছি মাস শেষে বেতন পেয়ে যখন পরিবার সন্তানের মুখে হাঁসি ফোটাতে পারি। এটাই আমার স্বার্থকতা। হ্যাঁ আমি কামলা…। গর্ব করে বলি কামলা কাম করে পরিবারকে সুখে রাখতে চেষ্টা করি।

এক শীতে হোটেলে অবকাশ যাপনে আসলেন ফ্রান্সের প্রভাবশালী সাবেক প্রেসিডেন্ট নিকলো সারকোজি দম্পতি। প্রেসিডেন্টের কক্ষে তখন কাজ করেছি। তাঁর বিদায় বেলা ছবি তোলার জন্য আবদার করলে হাঁসি মুখে ইচ্ছে পূরণ করলেন, অনেক নিরাপওা বেষ্টনী ভেদ করে। কামলা বলেননি এই সাবেক প্রেসিডেন্ট। তাঁদের চোখে সবাই সমান।

  • নুরুল আমীন, তুরিন, ইতালি।
শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.