Featured এশিয়া সিঙ্গাপুর

সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশি জিরো ইফেক্ট ব্যান্ডের অজানা গল্প

শেয়ার করুন

সিঙ্গাপুরে অনেকগুলো ব্যান্ড দলের মধ্যে জিরো ইফেক্ট অন্যতম৷ তারা ইতিমধ্যে তাদের গান পরিবেশনের মাধ্যমে সঙ্গীত প্রেমিদের মন জয় করেছেন। সঙ্গীতের প্রতি তাদের অগাধ ভালবাসাই এই ব্যান্ডের মূল চালিকা শক্তি।

২০১৬ সালের ২৮ ডিসেম্বর এই ব্যান্ড দলটি গড়ে উঠে। সেদিন ঘরোয়া পরিবেশে কয়েকজন সঙ্গীতপ্রেমী প্রবাসী বাংলাদেশীদের আড্ডায় তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্তে গঠন করা হয় জিরো ইফেক্ট মিউজিক্যাল ব্যান্ড সিঙ্গাপুর৷

একটি ব্যান্ড দল গঠন করতে চাই প্রয়োজনীয় সঙ্গীত যন্ত্রপাতি প্রাকটিস করার জন্য রুম৷ আর সবাই প্রবাসী হওয়ায় সবার পক্ষে সঙ্গীতের জন্য সরঞ্জাম ক্রয় করাও ছিল কষ্টসাধ্য। ঠিক সে একসময়ের বিটিভির গায়িকা সিঙ্গাপুর প্রবাসী শেফালী আক্তার শেফা এবং লিটনের সহযোগীতায় একটি হারমোনিয়াম, ১টি তবলা সেট এবং কিছু ফোক রিলেটেড বাদ্যযন্ত্র দিয়ে যাত্রা শুরু করে ব্যান্ড দলটি৷

তাদের সাথে কথা বলে যায়, তাদের উদ্দেশ্য ছিল সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে প্রতিভাবান বাঙ্গালী প্রবাসীদের নিয়ে একটি শক্তিশালী প্লাটফর্ম তৈরি করা। যাতে করে পিছিয়ে থাকা প্রতিভাবান প্রবাসীরা ( বিশেষ করে সাউথ ওয়েস্টে বসবাসরত) তাদের প্রতিভা প্রকাশের ক্ষেত্রে প্লাটফর্মটির ব্যবহার করতে পারে। সেইসাথে বৃহৎভাবে বাংলা সংস্কৃতিকে বৈশ্বিকভাবে পরিচিত করার ক্ষেত্রে দলগত ভাবে ভুমিকা পালন করা।

সেই ধারাবাহিকতায় লিটনের মেট্রো মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং এর মেটাল ওয়ার্কসপে সাপ্তাহিক প্র্যাকটিস চলতে থাকে। খুব দ্রুতই সদস্য সংখ্যা বৃদ্ধির সাথে সাথে ব্যান্ডের বাদ্যযন্ত্র এবং সাউন্ড সিস্টেমের ব্যাপক পরিবর্তন করা হয়। যুক্ত করা হয় ট্রান্সপোর্টেশন সুবিধা। বর্তমানে ব্যান্ড দলটি সিঙ্গাপুরের বাঙালি এবং বহুজাতিক বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন (SBS , DMEABS, SAMA SAMA, BSSS, Migrant society) এর প্রোগ্রামে পারফর্মেন্সের পাশাপাশি বিভিন্ন ওয়ার্কার ডরমিটরি এবং বেশ কিছু রিক্রিয়েশন সেন্টারে নিয়মিত পারফর্ম করে যাচ্ছে।

ভালো পারফর্মেন্সের ধরুন পেঞ্জুরু রিক্রিয়েশন সেন্টার এবং তুয়াস রিক্রিয়েশন সেন্টারে প্র্যাকটিস প্যাডের ব্যবস্থা করে দিয়েছে সেখানকার (JTC) ম্যানেজমেন্ট।

জিরো ইফেক্ট মিউজিক্যাল ব্যান্ডের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে ব্যান্ডের অপারেশনাল ম্যানেজার স্বপন খান বলেন, শুরুটা খুব সাদামাটা হলেও লক্ষ্যটা ছিল বিস্তর। আর বর্তমানে দলটি সেই বিস্তর লক্ষ্যের দিকেই যাচ্ছে। বাংলা সংস্কৃতিকে বৈশ্বিকভাবে পরিচিত করার পাশাপাশি সংস্কৃতির বিনিময়টাও খুব জরুরী। আর এরই প্রেক্ষিতে বর্তমানে ব্যান্ডে কিছু কৌশলগত পরিবর্তন আনা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, বাংলা গানের পাশাপাশি আমরা খুব ছোট পরিসরে ইংলিশ, ফিলিপিনো, তামিল এবং হিন্দি গানেরও চর্চা করছি বিভিন্ন ভাষাভাষী শ্রোতাদের চাহিদা অনুযায়ী। যাতে করে বিভিন্ন ভাষাভাষীর কমিউনিটিকে আমরা আমাদের মুল ধারাতে যুক্ত করতে পারি। বর্তমানে ব্যান্ডে বাঙালি সদস্যদের পাশাপাশি বেশ কিছু বিদেশী নিয়মিত সদস্য রয়েছে। যাদের মধ্যে ১ জন সিঙ্গাপুরিয়ান, ৩ জন ফিলিপাইন, ১ জন ইন্দোনেশিয়ান। দিন শেষে শত ক্লান্তি ভুলে এদেশে বসবাসরত সকল শ্রমজীবীদের যদি নূন্যতম বিনোদিত করতে পারি সেটা আমাদের অর্জন এবং ভাললাগা।

জিরো ইফেক্ট মিউজিক্যাল ব্যান্ডের প্রতিষ্ঠাতা লিটন বলেন, সিঙ্গাপুরে প্রবাসী বাংলাদেশীদের সঙ্গীতের প্রতি অকৃত্রিম ভালবাসা দেখে নিজের ভেতর একধরনের ভালোলাগা কাজ করে। তাদের জন্য কিছু একটা করার ইচ্ছে জাগে মনে। আর সেই ভালোলাগা ও ইচ্ছের কারনেই তাদের জন্য একটি প্লাটফর্ম তৈরি করি৷ এখন তারা বিভিন্ন অনুষ্ঠানে দলগতভাবে বাংলা গান পরিবেশন করে যা দেখে আমার ভেতর ভালোলাগা কাজ করে।

জিরো ইফেক্ট মিউজিক্যাল ব্যান্ডের বর্তমান লাইনআপ, ভোকালিস্ট- আনোয়ার হোসেন, শাহ আলম সাহেদ, স্বপন, সাদ্দাম, রনি, ওয়েক্সি। গিটারিস্ট- আদিল (লিড), রুহুল, ইভান , লরনা (বেজ)।ড্রাম- ফিংস, ইভান। কি-বোর্ডে এবং বাঁশি- মোয়াজ্জেম। কাজন- স্বপন। দুতারা- শাহ আলম। উকুলিলি- আল আমিন। সাউন্ড মিডিয়া এবং মেটারিয়ালস- স্বপন, আইরিন। ইভেন্ট ম্যানেজার- আনোয়ার হোসেন।
সার্বিক সহযোগিতায়- মেট্রো মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং।

  • ওমর ফারুকী শিপন, সিঙ্গাপুর।

আরও পড়ুন- ডেনমার্কে প্রবাস কথার মিলনমেলা ও পিঠা উৎসব

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.