Featured ইউরোপ বাংলাদেশ থেকে মধ্যপ্রাচ্য

শুরু হচ্ছে প্রবাসীদের ভোটার নিবন্ধন; আবেদনের বিস্তারিত

শেয়ার করুন

জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে প্রবাসীদের বিড়ম্বনার ইতি ঘটতে যাচ্ছে খুব শীঘ্রই। প্রবাসীরা যেন নিজের কর্মস্থলে থাকা অবস্থাতেই ভোটার হতে পারেন সেই ব্যবস্থায় শুরু করতে যাচ্ছে নির্বাচন কমিশন।

আগামী ৭ নভেম্বর থেকে মালয়েশিয়ার মাধ্যমে শুরু হবে প্রবাসীদের অনলাইনে ভোটার নিবন্ধন। মালয়েশিয়াতে অবস্থানরত প্রবাসীদের অনলাইনে ভোটার নিবন্ধনের মধ্য দিয়ে নতুন এই পদ্ধতির উদ্বোধন করা হবে।

মালয়েশিয়ার অনলাইন ভোটার নিবন্ধনের প্রথম দিন  প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা ঢাকা থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এর উদ্বোধন করবেন। এসময় অন্য প্রান্তে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ মালয়েশিয়াস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসে উপস্থিত থেকে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবেন বলে দূতাবাস সূত্রে জানা গেছে।

দূতাবাস সূত্র জানিয়েছে, প্রবাসী বাংলাদেশিরা একটি নির্দিষ্ট ওয়েবসাইটে গিয়ে একটি সফটওয়্যারের মাধ্যমে ভোটার হিসেবে নিবন্ধনের আবেদন করতে পারবেন।

আবেদনের পর সেই সব আবেদন সঠিক কি না, ইসি তা কেন্দ্রীয়ভাবে যাচাই করবে। যাচাই-বাছাই শেষে ইসির কর্মকর্তারা সংশ্লিষ্ট দেশে গিয়ে যোগ্য ও সঠিক আবেদনকারীদের ছবি তোলাসহ ফিঙ্গারপ্রিন্ট ও চোখের মনির ছাপ (আইরিশ) গ্রহণ করবে।

এ বিষয়ে মালয়েশিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মো. শহীদুল ইসলাম জানান,

মালয়েশিয়ায় বসবাসরত প্রবাসীদের দীর্ঘদিনের দাবি পূরণ হতে চলেছে। ৭ নভেম্বর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে দূতাবাস থেকে আমরা অনলাইনে নিবন্ধনের মাধ্যমে প্রবাসীদের ভোটার করার পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি।

তবে শুধু মালয়েশিয়াই নয়, যুক্তরাজ্য, দুবাই ও সৌদি আরবের প্রবাসীরাও এই সুযোগ পাবেন। পরে পর্যায়ক্রম অন্যান্য দেশে অবস্থানরত বাংলাদেশিদের জন্যও উন্মুক্ত করা হবে এই সুবিধা।

এই প্রক্রিয়া সহজ করার জন্য ভোটার তালিকা বিধিমালায় প্রয়োজনীয় সংশোধনী আনা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, বিদেশে বসবাসরতরা সেই দেশে ইসির স্থাপিত রেজিস্ট্রেশন কেন্দ্রে গিয়ে কিংবা অনলাইনে ভোটার হওয়ার আবেদন করতে পারবেন।

অনলাইন নিবন্ধনের ওয়েবসাইটটির ঠিকানা: services.nidw.gov.bd

এক্ষেত্রে ভোটার হতে ইচ্ছুক প্রবাসী সর্বশেষ যে এলাকায় বসবাস করেছেন বা নিজের অথবা বাবার বাড়ির ঠিকানায় ভোটার হওয়ার জন্য আবেদন করতে পারবেন। পরবর্তীতে তার আবেদন সেই এলাকার উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার মাধ্যমে তদন্তের পর দশ আঙুলের ছাপ, চোখের আইরিশের প্রতিচ্ছবি ও ভোটারের ছবি তুলে এনআইডি সরবরাহ করা হবে। এর আগের রেজিস্ট্রেশন কেন্দ্রে ও ইসির ওয়েবসাইটে দাবি-আপত্তির জন্য তালিকা দেয়া হবে। এ সময়ের মধ্যে কোনো ভুল থাকলে তা সংশোধন করা যাবে।

এর আগে নির্বাচন কমিশন সরাসরি সিঙ্গাপুরে গিয়ে সেখানে বসবাসরত প্রবাসীদের ভোটার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল কমিশন। তবে এ বিষয়ে যথাসময়ে সিঙ্গাপুর সরকারের কাছ থেকে অনুমতি না পাওয়ায় সেটা সম্ভব হয়নি। পরে ইসি তাদের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে মালয়শিয়ায় প্রথম অনলাইনে নিবন্ধনের পদক্ষেপ গ্রহণ করে।

  • সুমাইয়া হোসেন লিয়া, প্রবাস কথা, ঢাকা।
শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.