Featured ওশেনিয়া নিউজিল্যান্ড

শুক্রবারের সন্ত্রাসী হামলার পর নিউজিল্যান্ডে বন্দুকের ব্যবসা বেড়ে গেছে

ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার পর, নিউজিল্যান্ডে প্রধানমন্ত্রী জেসিন্দা আর্দার্ন যখন সেমি-অটোমেটিক রাইফেল নিষিদ্ধ করার কথঅ ভাবছেন তখন কিছু মানুষ বন্দুক মজুদ করতে ব্যস্ত। ক্রাইস্টচার্চের বড় বন্দুকের দোকান ‘গান সিটি’র ব্যবসা রমরমা। আজ (রোববার) গান সিটির বন্দুক ক্রেতার সংখ্যা দুই ডজন ছাড়িয়ে গেছে।

একদিকে দেশটির প্রধানমন্ত্রী এসব বন্দুকের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার কথা ভাবছেন, অন্যদিকে মানুষ বন্দুক মজুদ করছে। কেন? বন্দুকের ক্রেতারা ভাবছে, মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার পর আসলেই যদি নিষেধাজ্ঞা আসে তাহলে তাদের প্রিয় খেলনা হয়তো তাদের নাগালের বাইরে চলে যাবে।

নিউজিল্যান্ডে বন্দুকের সবচেয়ে বড় খুচরা বিক্রেতা ‘গান সিটি’। এই গান সিটির উল্টোদিকে একটা খাবারের দোকানে কাজ করা এক ব্যক্তি বলেছেন,

’শুক্রবারের হত্যাকান্ডের পর বন্দুকের দোকানে খুব ব্যস্ততা যাচ্ছে। এর আগে বন্দুকের দোকানে এমন ভিড় শুধু বাৎসরিক সেল যেদিন দেয়া হয় সেদিন দেখেছি।’

গান সিটি বাদে সব দোকান বন্ধ

বিপরীত দিকে দোকানের ঐ কর্মী আরো জানান, তিন ঘন্টার জন্য সব দোকান বন্ধ ছিল শুধু গান সিটি ছাড়া। পুলিশ খুনীকে ধরার জন্য হন্যে হয়ে খুঁজছিল, চারিদিকে এ্যাম্বুলেন্স এর ছুটোছুটি, যে যার মতো কর েসহযোগিতা করতে এগিয়ে আসছিল। আবার কিছু বন্দুক ক্রেতা গান সিটিতে ঢুকেছিল খালি রাইফেল ব্যাগ নিয়ে।

’এটা আসলেই খুব বিরক্তিকর।’

এ ব্যাপারে মন্তব্যের জন্য গান সিটি কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করা হলে, সেখানকার কর্মকর্তা বলেন-

’আমি মনে করি না যে,  এটা ঠিক হচ্ছে।’

রোববার গান সিটিতে যারা ক্রেতা হিসেবে ঢুকেছিলেন তাদের একজন নিউজিল্যান্ডের সাবেক একজন সৈনিক। সে এ্যান্টনি বলে নিজেকে পরিচয় দেয়। সে জানায়, রাইফেল সে ক্রীড়া বা স্পোর্টের অংশ হিসেবে ব্যবাহর করে। তার ধারণা, সেমি-অটোমেটিক রাইফেল নিষিদ্ধ হবে না। তবে এমনটা যদি হয় সেই আশঙ্কায় তার বন্ধুরা বন্দুক কিনছে।
  • প্রবাস কথা ডেস্ক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.