Featured মধ্যপ্রাচ্য লেবানন

লেবাননে বৈধতা পাচ্ছেন ৪০ হাজার অবৈধ বাংলাদেশি

লেবাননে বসবাসকারী প্রবাসী বাংলাদেশিদের এখন আর অবৈধ হিসেবে থাকতে হবেনা। অবৈধ বাংলাদেশি প্রবাসীদের বৈধতা দিতে লেবানন পার্লামেন্টে সম্প্রতি একটি আইন পাস করার উদ্যোগ নিয়েছে দেশটির সরকার। এই আইন কার্যকর হলে লেবাননে অবস্থানরত প্রায় ৪০ হাজার অবৈধ বাংলাদেশি বৈধতা পাবেন। লেবাননের বৈরুতে বাংলাদেশ দূতাবাসের নিরবচ্ছিন্ন প্রচেষ্টায় লেবানন সরকার শুধু বাংলাদেশি শ্রমিকদের জন্য ২০ বছরের মধ্যে প্রথমবারের মত এ উদ্যোগ নিয়েছে।

লেবাননের প্রবাসীদের মধ্যে যাদের বৈধ কাগজপত্র নেই তাদের প্রতি বছর ২৭০ ডলার জরিমানা দিয়ে দেশে ফিরতে হয়। বর্তমানে লেবাননে প্রায় ১ লাখ ৮০ হাজার বাংলাদেশি প্রবাসী আছে।  এদের মধ্যে অনেকেই দালালের ফাঁদে পড়ে চার থেকে পাঁচ লাখ টাকা খরচ করে লেবাননে গেছেন। কিন্তু লেবাননে গিয়ে তারা নানাভাবে প্রতারিত হয়ে অবৈধ শ্রমিক হিসেবে পরিচিতি পাচ্ছেন।

লেবাননে অবস্থানরত কোনো প্রবাসী শ্রমিক পাঁচ বছর অবৈধ থাকলে তাকে ১৩৫০ ডলার জরিমানা এবং বিমান ভাড়া দিয়ে নিজ দেশে ফিরতে হয়।

তবে এমন সমস্যা সমাধানে বাংলাদেশ দূতাবাস প্রবাসী বাংলাদেশিদের জন্য প্রাথমিকভাবে একটি সাধারণ ক্ষমার জন্য প্রচেষ্টা চালায়। লেবাননে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আবদুল মোতালেব সরকার দূতাবাসে যোগ দিয়ে প্রথম বছরেই প্রবাসীদের ন্যূনতম বেতন বাড়ানোর ব্যবস্থা করেছেন।

সেই সাথে বিনা জরিমানায় অবৈধ বাংলাদেশিদের দেশে ফেরত পাঠানো, মাত্র ১০-১৫ দিনে মৃতদেহ দেশে পাঠানোসহ বিনা খরচে বাড়ি পর্যন্ত পৌঁছানোর ব্যবস্থা করা, অসুস্থদের জন্য চিকিৎসার ব্যবস্থা- এসবই লেবাননে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের উদ্যোগে সম্ভব হয়েছে।

বর্তমানে লেবাননে অবৈধ প্রবাসী বাংলাদেশিদের বৈধকরণের লক্ষ্যে কাজ করেছে বাংলাদেশ দূতাবাস। এই বৈধতা প্রদানের লক্ষ্যে গত ৩০ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী সাদ হারিরির সঙ্গে, ৮ মে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রায়া হাসান ও ৫ জুলাই শ্রমমন্ত্রী ক্যামিল আবু স্লেইমানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন বাংলাদেশ রাষ্ট্রদূত।

সর্বশেষ গত ৯ জুলাই লেবাননের কাউন্সিল অব মিনিস্টারসের সেক্রেটারি জেনারেল জাস্টিস মোহাম্মদ ম্যাককিয়ের সঙ্গেও বৈঠক করেছেন তিনি। একই দিনে জাস্টিস ম্যাককিয়ে, শ্রমমন্ত্রী ক্যামিল আবু স্লেইমান ও রাষ্ট্রদূতের মধ্যে ত্রিপক্ষীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে বৈধ কাগজপত্রবিহীন বাংলাদেশি কর্মীদের জরিমানা ছাড়াই একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ ফি দেওয়ার মাধ্যমে বৈধকরণ এবং লেবাননের পার্লামেন্টে দ্রুত এ বিষয়ে একটি আইন/ডিক্রি পাসের বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে।

উল্লেখ্য, প্রায় ২০ বছর ধরে লেবানন সরকার অবৈধ প্রবাসীদের বৈধ করার কোনো সুযোগ দেয়নি। লেবাননে নিযুক্ত বাংলাদেশ রাষ্ট্রদূত আবদুল মোতালেব সরকারের প্রচেষ্টায় শুধুমাত্র বাংলাদেশিরাই এমন একটি সুযোগ পেতে যাচ্ছে।

লেবাননে অবৈধভাবে ১৮ বছর থাকার পর দূতাবাসের সহায়তায় বাংলাদেশে ফিরে আসা মফিজুল আলম নামক একজন প্রবাসী বলেন,

দীর্ঘদিন লেবাননে থেকে মানসিকভাবে ভেঙে পড়ি। আমার জরিমানা হয়েছিল বাংলাদেশি টাকায় প্রায় চার লাখ। অসুস্থ হয়ে অনেক টাকা খরচ হয়ে যায়। কাজ করতেও খুব কষ্ট হতো। জরিমানার কারণে দেশে ফিরতে পারছিলাম না। বৈরুত দূতাবাসের সহায়তায় আমি ফিরেছি।

লেবানন থেকে জরিমানা দিয়ে দেশে ফেরত আসা কয়েকজন বাংলাদেশি জানান,

লেবাননের আইন অনেক জটিল। সেখানে সারা জীবন থাকলেও কেউ বৈধ হতে পারবেন না। কঠিন ইমিগ্রেশন আইনের কারণে চাইলেও কেউ দেশে ফিরতে পারবেন না।

রাষ্ট্রদূত আবদুল মোতালেব সরকার বলেছেন,

জরিমানা ছাড়াই অবৈধ বাংলাদেশিরা বৈধ হওয়ার সুযোগ পাবেন।

তিনি আরও বলেন,

আশা করছি, শিগগিরই বিপুলসংখ্যক বাংলাদেশি লেবাননে বৈধ হওয়ার সুযোগ পাবেন।এ সুবিধাটি পেতে হলে লেবাননের পার্লামেন্টে একটি আইন পাস করতে হবে। সেই প্রক্রিয়াটি চলছে। এটি কার্যকর হলে তা হবে আমাদের দীর্ঘ প্রচেষ্টার ফল এবং বাংলাদেশের জন্য একটি অনন্য প্রাপ্তি।

লেবানন সরকারের সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ এ বিষয়ে আশ্বাস দিয়েছেন বলেও জানান তিনি।

  • সুমাইয়া হোসেন লিয়া, প্রবাস কথা, ঢাকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.