Featured ইউরোপ পর্তুগাল

লিসবনে সংঘর্ষে বাংলাদেশির মৃত্যুর খবর গুজব, কিভাবে ছড়ালো এই গুজব?

শেয়ার করুন

পর্তুগালে বাংলাদেশি দুই ব্যবসায়ীর মধ্যে আঞ্চলিক বিরোধের জের ধরে দীর্ঘ কয়েক মাসের চলমান সমস্যা হাতাহাতি থেকে শুরু করে শেষমেশ রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের পর তা নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে। ফলে চলমান এই সমস্যাকে আরো উতপ্ত করা হয়েছে। বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে একজন নিহত হওয়ার যে খবর পাওয়া গেছে তা সম্পূর্ণ গুজব।

সর্বশেষ গত শনিবার রাতে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে চারজন গুরুতর আহত হয়ে লিসবন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন এবং এদের মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

চলমান এই সমস্যাকে অনেকেই ব্যক্তিগত স্বার্থ হাসিলের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করতে চেষ্টা করছেন। স্থানীয় কোন কোন মিডিয়ায় বাংলাদেশিদের কাজ থেকে তথ্য সংগ্রহ করে ঘটনার কারণ রাজনৈতিক ও ধর্মীয় হিসেবে প্রকাশ করছেন। যা একেবারে সত্যি নয়, এ রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ একান্ত ব্যক্তিগত সমস্যার কারনে হয়েছে।

লিসবনে বসবাসরত বাংলাদেশীরা এটাকে অশনি সংকেত হিসেবে দেখছেন বাংলাদেশি কমিউনিটির জন্য। যদি ধর্মীয় কারনে এই রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়েছে বলে প্রমাণিত হয় তাহলে লিসবনে মুসলিম বাংলাদেশিরা আগের মতো স্বাধীনভাবে ধর্মীয় কার্যক্রম পালনে বাধাগ্রস্থ হবে তাতে কোন সন্দেহ নেই।

এদিকে লিসবনের বাংলাদেশ কমিউনিটির প্রবীণ ব্যক্তি, পর্তুগালের মুল ধারার রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব রানা তাসলিম উদ্দিন সবাইকে নিজ নিজ জায়গা থেকে সজাগ থেকে প্রতিবাদ করতে আহবান করেছেন, যাতে কোন অবস্থাতেই এই ব্যক্তিগত সমস্যাকে রাজনৈতিক বা ধর্মীয় ঘটনা হিসেবে প্রমাণিত করতে সুযোগ না দেয়া হয়।

বাংলাদেশ দূতাবাস লিসবন কর্তৃক এই বিষয়ে বাংলাদেশের সংশ্লিষ্ট দপ্তরে বিস্তারিত জানিয়েছেন। এছাড়া পর্তুগালের পুলিশ প্রশাসন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ রাখছেন।

এই ঘটনার পর থেকে লিসবনে বসবাসরত সকল ও বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা উদ্বিগ্ন ও দুঃচিন্তার মধ্যে রয়েছেন। ব্যক্তিগত সংঘাতের কারনণ পর্তুগাল সরকারের কাছে বাংলাদেশ কমিউনিটির যে সুনাম ছিলো তা অনেকটা হুকমির মধ্যে পড়তে যাচ্ছে।

  • জাহিদ কায়সার, প্রবাস কথা, প্রতিনিধি, পর্তুগাল।
শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.