Featured সুস্থ থাকুন

এবার নতুন রোগ হিসেবে স্বীকৃতি পেলো পেশাগত অবসাদ

কর্মক্ষেত্রে অতিরিক্ত কাজের চাপ, অনেকের কাছেই নিত্যদিনের ব্যাপার। এই বাড়তি কাজের চাপের কারণেই অনেকে তীব্র মানসিক অবসাদে ভোগেন। এতে করে যেকোনো কর্মীর কাজের দক্ষতা কমে যায়, সেই সাথে দেখা দেয় আরও নানান সমস্যা। কর্মস্থলের কারণে সৃষ্টি হওয়া এই অবসাদকে ‘পেশাগত অবসাদ’ বা ‘বার্নআউট’ও বলা হয়ে থাকে।

বিশ্বের বহু মানুষ এ ধরণের সমস্যায় ভুগলেও এর কোনো আনুষ্ঠানিক রোগ হিসেবে স্বীকৃত ছিলো না। সম্প্রতি জেনেভায় চলমান ৭২তম (২০-২৮ মে) ওয়ার্ল্ড হেলথ অ্যাসেম্বলিতে ‘বার্নআউট’কে ইন্টারন্যাশনাল ক্লাসিফিকেশন অব ডিজিজের (আইসিডি) তালিকাভুক্ত করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO)। এটি এখন আনুষ্ঠানিকভাবেই একটি স্বাস্থ্যগত সমস্যা।

রোগ শনাক্তকরণের ক্ষেত্রে আইসিডিকে একটি বেঞ্চমার্ক হিসেবে ব্যবহার করা হয়। তাছাড়া এই তালিকাভুক্ত রোগগুলো স্বাস্থ্য বীমার আওতায়ও পড়ে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বার্নআউট রোগ শনাক্তে তিনটি লক্ষণ উল্লেখ করেছে। এগুলো হচ্ছে, শক্তি হ্রাস অথবা অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়া,  নিজের কাজের সঙ্গে মানসিক দূরত্ব তৈরি হওয়া এবং পেশাগত দক্ষতা কমে আসা।

সংস্থাটি আরো জানিয়েছে,

‘এখানে অবসাদকে পেশাগত দিক থেকে উল্লেখ করা হয়েছে। তবে একে জীবনের অন্যান্য অংশের অভিজ্ঞতার সাথে মিলিয়ে ফেলা যাবে না।’

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মুখপাত্র তারিক জাসারভিক সাংবাদিকদের জানান,

 এই প্রথমবার বার্নআউট শ্রেণীভুক্ত রোগ হিসেবে নাম লেখাল।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার আইসিডি তালিকাটি হালনাগাদের পর এটি এখন আইসিডি-১১ হিসেবে পরিচিত হবে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিশেষজ্ঞদের মতামতের উপর ভিত্তি করে গত বছর এর খসড়া তৈরি করা হয়েছে। গত শনিবার (২৫ শে মে) এ হালনাগাদ তালিকাটি অনুমোদন পেয়েছে।

  • সুমাইয়া হোসেন লিয়া, প্রবাস কথা, ঢাকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.