Featured বাংলাদেশ থেকে রঙ্গের দুনিয়া

‘ভাসমান ট্রেন’ আবিষ্কার করে অনন্য নজির গড়লেন বাংলাদেশি বিজ্ঞানী

শেয়ার করুন

বিশ্বে নতুন ধরণের ট্রেন আবিষ্কার করে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন এক বিজ্ঞানী। গর্বের বিষয় তিনি ইউরোপ-আমেরিকার কেউ নন, এক বাংলাদেশির হাত ধরেই এসেছে এই আবিষ্কার। বাংলাদেশি গবেষক ড. আতাউল করিম আবিষ্কার করেছেন এই ‘ভাসমান’ ট্রেন’।

আতাউল করিমের নকশার ট্রেনটি চলার সময় ভূমি স্পর্শ করবে না। নতুন এই নকশা ট্রেনের প্রচলিত ধারাকে পুরোপুরি পরিবর্তন করে দিয়েছে।

এই ট্রেনের প্রধান বৈশিষ্ট্য, এটি চলার সময় অন্যসব ট্রেনের মত ভূমি স্পর্শ করবে না। চুম্বক শক্তিকে কাজে লাগিয়ে চলবে বুলেট ট্রেনের মতো।

যদিও ইতিমধ্যে চীন, জার্মানি, ও জাপানে ১৫০ মাইলের বেশি গতির ট্রেন আবিষ্কৃত হয়েছে। তবে পার্থক্য হচ্ছে, পূর্বের দ্রুতগতির ট্রেনের ক্ষেত্রে প্রতি মাইল ট্র্যাক বসানোর জন্য গড়ে খরচ পড়ে প্রায় ১১ কোটি ডলার।

অপরদিকে ড. আতাউলের আবিষ্কৃত এই ট্রেনের ক্ষেত্রে খরচ হবে মাত্র এক কোটি ২০ লাখ থেকে ৩০ লাখ ডলার।

ভাসমান ট্রেনের এই প্রকল্পটি একেবারেই নতুন নয়। ড. আতাউল এই প্রকল্পটি শুরু করেন ২০০৪ সালে। এর দেড় বছর পরই ট্রেনটির ‘প্রোটোটাইপ’ তৈরি করতে সক্ষম হন তিনি।

এর পরের সময়ে বিভিন্ন বিজ্ঞানীরা মডেলটি পরীক্ষা নিরীক্ষা করে দেখেছেন। কিন্তু কোনো ক্রুটি খুঁজে না পাওয়ায় এটি বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে এই ট্রেন বাণিজ্যিকভাবে তৈরির বিষয়টি নিয়ে ভাবা হচ্ছে।

  • সুমাইয়া হোসেন লিয়া, প্রবাস কথা, ঢাকা।
শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.