Featured বাংলাদেশ থেকে রঙ্গের দুনিয়া

ভালবাসায় সিক্ত নগরবাসীর বসন্ত বরণ!

শেয়ার করুন

রাজধানী ঢাকার বাসিন্দাদের একটি বড় অংশই পরিবারকে ‘সময়’ দেওয়ার যথাযথ ফুরসত পান না। কংক্রিটের নগরে জীবনযাপনে অভ্যস্ত এই শহুরে মানুষদের জন্য একটি ছুটির দিন অনেক বড় আশির্বাদ স্বরূপ। তার উপর যদি এই সাপ্তাহিক ছুটির দিনেই পড়ে যায় কোনো উৎসব তাহলে আর কথাই নেই!

তবে অধিবর্ষ বলে, এবার পহেলা ফাল্গুন ও ভ্যালেন্টাইনস ডে বাংলা ক্যালেন্ডারের হিসাবে একই দিনে পড়েছিল। দুটো উৎসবেরই তারিখ ১৪ই ফেব্রুয়ারি তথা শুক্রবার। একে তো বন্ধের দিন, তার উপর দুটো উৎসব, রাজধানীবাসী যেন এমন দিনেরই অপেক্ষায় ছিল বহুকাল।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদে সকাল ৭ টায় শুরু হয় ‘বসন্ত বরণ’ উৎসব। সংগীত, নৃত্য, আবৃত্তি নিয়ে পরিপূর্ণ ছিল পুরো অনুষ্ঠান। শিশু, বৃদ্ধসহ সকল বয়সের নারী-পুরুষ ‘হলুদ-কমলা’ সাজে রঙ্গিন করে তোলে এই আয়োজন। এই অনুষ্ঠানের প্রথম পর্ব সকাল ১০ টা পর্যন্ত স্থায়ী হয়। পরবর্তীতে দুপুরের পর আবারো শুরু হয় বসন্ত বরণের দ্বিতীয় ধাপ। এতেও অংশগ্রহণের কমতি ছিলনা সকল বয়সী মানুষের।

বসন্ত বরণের পাশাপাশি ভালবাসা প্রকাশেও কার্পন্য করেননি নগরবাসী। হলুদ-কমলা সাজকে পিছনে ফেলে লাল রঙে সেজে উঠেছিল নগরের বাকি অংশটুকুও। প্রিয়জনকে ভালবাসার শুভেচ্ছা জানাতে হাতিরঝিল, টিএসসি, বইমেলাসহ সকল প্রাঙ্গণ আজ ছিল লোকে লোকারণ্য।

ভালবাসা দিবস কিংবা ফাগুনের প্রথম দিন, কোনো অনুষ্ঠানেই ছিল ‘ফুলেল’ সাজের সরব উপস্থিতি। নারীদের হাতে, গলায় ফুলের মালার পাশাপাশি মাথায় শোভা পেয়েছে নানা রঙের ফুলের রিং। এর আগে এই ‘১৪ই ফেব্রুয়ারি’কে কেন্দ্র করে ১৯০ কোটি টাকার ফুলের ব্যবসা আশা করেছেন ফুল ব্যবসায়ীরা। গতবছর (২০১৯ সাল) এ ২০০ কোটি টাকার ফুলের ব্যবসা হয়েছিল বসন্ত ও ভালবাসা দিবসকে কেন্দ্র করে।

তবে ফুল হোক কিংবা রঙ্গিন সাজ, ভালবাসার উষ্ণ অভ্যর্থনায় পহেলা ফাল্গুন ১৪২৬ কে সাদরে বরণ করে নিতে কোনো কমতি রাখেননি রাজধানীবাসী। তারিখ বদলালেও বাংলা সংস্কৃতি ও পাশ্চাত্য রীতির এক অসাধারণ মিল বন্ধন ঘটাতে ঠিকই সক্ষম হয়েছেন জাদুর শহর ঢাকার মানুষজন।

  • সুমাইয়া হোসেন লিয়া, প্রবাস কথা, ঢাকা।
শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.