Featured বাংলাদেশ থেকে

ফেনী নদীর নাম ‘আবরার নদী’ করার দাবি রিজভীর

শেয়ার করুন

বুয়েটের শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে দেশের মাটি-পানি রক্ষার যুদ্ধের প্রথম শহীদ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। আজ মঙ্গলবার (৮ অক্টোবর) দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

রিজভী সাংবাদিকদের বলেন,

‘দেশের মাটি-পানি রক্ষার যুদ্ধের প্রথম শহীদ আবরার ফাহাদ। ফেনী নদীর নাম হোক আবরার নদ।’

এ সময় আবরার ফাহাদ হত্যার তীব্র নিন্দা জানিয়ে তিনি বলেন,

‘দেশবিরোধী চুক্তির বিরুদ্ধে স্ট্যাটাস দেয়ার অপরাধে নারকীয় কায়দায় রাতভর নির্যাতন চালিয়ে ছাত্রলীগের ক্যাডাররা খুন করেছে বুয়েটের সোনার টুকরো মেধাবী ছাত্র আবরার ফাহাদকে। আবরার ফাহাদের মতো নিরীহ নিরপরাধ দেশপ্রেমী মেধাবী ছাত্রকে হত্যার মাধ্যমে ছাত্রলীগ প্রমাণ করেছে যে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সাধারণ শিক্ষার্থীদের জান-মালের কোনো নিরাপত্তা নেই।’

এসময় তিনি আরো বলেন,

‘বুয়েটের মতো একটি মেধাবীদের প্রতিষ্ঠান, আমি বলবো- সেন্টার অব এক্সিলেন্স; এইরকম একটি প্রতিষ্ঠানের ছাত্র, তার তো মত প্রকাশের স্বাধীনতা থাকতেই পারে। সে দেশ নিয়ে, দেশের যেকোনো ঘটনা নিয়ে মত প্রকাশ করতেই পারে। তারপরেও সে কোনো মিছিল করে নয়, কোনো মিটিংয়ে বক্তব্য রেখে নয়, প্রযুক্তির কল্যাণে সামাজিক মাধ্যমে সে তার অভিমত ব্যক্ত করেছে। আমি নিজেও পড়েছি। দ্বিতীয় বর্ষের একজন ছাত্রের রাজনৈতিক ইতিহাসের বিষয়ে তার যে লেখাপড়া সেটা আমাকে বিস্মিত করেছে। সেখান থেকে সে কিছু কথা লিখেছে। সেজন্য তাকে জীবন দিতে হলো। কারণ, এখন যে ছাত্রলীগ তাতে কোনো আদর্শ, মনন, শিক্ষা দ্বারা তৈরি নয়। একেবারেই একটি পেটুয়া বাহিনী।’

আবরার হত্যায় ১৯ জনের নামে যে মামলা দেয়া হয়েছে তার মধ্যে এ হত্যাকাণ্ডের মূল হোতারা নেই এবং তাদের রক্ষায় বুয়েট প্রশাসন চেষ্টা চালাচ্ছে বলেও দাবি করেন রিজভী।

এ বিষয়ে রিজভী প্রশ্ন তোলেন,

ছাত্রলীগ কী? তারা ছাত্র সংগঠন। শিক্ষার বিষয় নিয়ে তারা কথা বলবে বা আন্দোলনও করতে পারে। শিক্ষা সংক্রান্ত, বিশ্ববিদ্যালয় সংক্রান্ত, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে তারা কথা বলবে। তা না করে একে মারে, তাকে ধরে, ছিনতাই করে।, কুপিয়ে হত্যা করে।

রিজভী আরও বলেন,

বাস পোড়ানোর অভিযোগে যদি বিএনপির সিনিয়র নেতাদের বিরুদ্ধে মামলা হয় তাহলে আবরার হত্যার জন্য ক্ষমতাসীনদের শীর্ষ নেতাদের নামে মামলা হবে কিনা তা জাতি জানাতে চায়।

উল্লেখ্য গত রবিবার দিবাগত রাত ৩ টায় বুয়েটের শের-এ-বাংলা হল থেকে আবরার ফাহাদের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। নিহত আবরার বুয়েটের ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী ছিল।

  • সুমাইয়া হোসেন লিয়া, প্রবাস কথা, ঢাকা।

আরও পড়ুন-“জানাজায় আসার মত ৫ মিনিট সময় হলোনা স্যার?”

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.