Featured অভিবাসন কানাডা

থাইল্যান্ডে আটক সেই সৌদি তরুণী কানাডার শরণার্থী হয়েছেন

থাইল্যান্ডে আটক সেই সৌদি তরুণী রাহাফ মোহাম্মদ আল-কুনুন (১৮) কানাডার শরণার্থী মর্যাদা পেয়েছেন। এদিকে অস্ট্রেলিয়াও তার শরণার্থী হিসেবে আবেদন গ্রহণ করেছে।

বিবিসির খবরে বলা হয়, কানাডা সরকার ১৮ বছর বয়সী এই সৌদি তরুণীকে আশ্রয় দিতে রাজি হওয়ার পর ব্যাংকক থেকে সিউল হয়ে শনিবার কানাডা পৌঁছান তিনি।

কানাডার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ক্রিস্টিয়া ফ্রিল্যান্ড সাংবাদিকদের সামনে রাহাফকে পরিচয় করিয়ে দেন ‘দারুণ সাহসী এক নতুন কানাডীয়’ হিসেবে। তবে গত কয়েক দিনের পরিস্থিতি আর দীর্ঘ ভ্রমণের কারণে রাহাফ ‘ক্লান্ত’ জানিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ওই তরুণী এ মুহূর্তে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলবেন না।

পরিবারের সঙ্গে কুয়েত ভ্রমণে থাকার সময় গত ৪ জানুয়ারি পালিয়ে অস্ট্রেলিয়া যাওয়ার চেষ্টা করেন ১৮ বছরের তরুণী রাহাফ। কুয়েত এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে তিনি ব্যাংকক বিমানবন্দরে পৌঁছান। সেখান থেকে তার অস্ট্রেলিয়ার ফ্লাইট ধরার কথা ছিল। কিন্তু ব্যাংকক বিমানবন্দরে সৌদি আরবের একজন কূটনীতিক তার সঙ্গে দেখা করে তার পাসপোর্ট জব্দ করে বলে দাবি রাহাফের।

আরো জানা যায়, ফিরতি টিকিট নেই উল্লেখ করে কুয়েতে ফেরত পাঠানোর জন্য থাই কর্তৃপক্ষ সুবর্ণভূমি বিমানবন্দরের ট্রানজিট এলাকায় একটি হোটেলের কক্ষে রাখে কুনুনকে। ফেরত পাঠানোর জন্য কুনুনকে হোটেলকক্ষ থেকে আনতে গিয়ে বিপত্তিতে পড়ে থাই কর্তৃপক্ষ। ওই তরুণী দেশে ফিরতে অস্বীকৃতি জানিয়ে নিজেকে হোটেলকক্ষে আটকে রাখেন। হোটেলকক্ষের দরজার সামনে প্রতিবন্ধকতা হিসেবে বিছানার ম্যাট, টেবিল, চেয়ার দিয়ে রাখেন তিনি।

হোটেল কক্ষে থেকেই টুইটারে নিজের ছবি ও বক্তব্য পোস্ট করেন আল-কুনুন। তাঁকে ফেরত পাঠালে মেরে ফেলা হবে এমন কথাও বলেন তিনি। এরপরই বিষয়টি নজরে আসে জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সংস্থার (ইউএনএইচসিআর)।

প্রবাস কথা ডেস্ক 

আরো পড়ুন- জাল ভিসা: অস্ট্রেলিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাসের কর্মকর্তার বিরুদ্ধে শাস্তির পদক্ষেপ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.