Featured বাংলাদেশ থেকে সুস্থ থাকুন

ডেঙ্গুর সময় ঈদ; বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের ভাবনা

শেয়ার করুন

দোরগোড়ায় কড়া নাড়ছে ঈদ। কোরবানির জন্য পশু কেনা থেকে শুরু করে সকল আয়োজনই এখন একেবারে শেষ পর্যায়ে। তবুও এবছরের ঈদের প্রস্তুতিতে কোথায় যেন একটি কমতি থেকেই যাচ্ছে। সঠিক পশু কেনা কিংবা সঠিক স্থানে কোরবানি দেওয়ার বিষয়ে কমবেশি সব ধারণাই আমাদের ইতিমধ্যে হয়ে গেছে। কিন্তু এবারের কোরবানি ঈদে রয়েছে একটি বাড়তি চিন্তাও। আর তা হলো ডেঙ্গু!

ডেঙ্গু নিয়ে সচেতনতা এবং বাড়তি প্রস্তুতির জন্য ‘প্রবাস কথা’র সাথে যুক্ত হয়েছিলেন, অধ্যাপক এস এম মোস্তফা জামান, (ইন্টারভেনশনাল কার্ডিওলজি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়)। তিনি জানিয়েছেন কিভাবে এই ঈদের মত ব্যস্ত মুহূর্তেও  ডেঙ্গুর প্রকোপ থেকে বিরত থাকা যেতে পারে।

বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের ভাবনায় ডেঙ্গু এবং ঈদ

রাত পোহালেই ঈদ। এবারের ঈদে নাড়ীর টানে বাড়ি ফেরার পাশাপাশি যুক্ত হয়েছে নতুন ভাবনা-ডেঙ্গু। কোরবানির প্রস্তুতি এবং যানজট ভোগান্তি আমাদের জন্য নতুন বিষয় নয়। স্থলপথ, নদীপথ অথবা আকাশপথে যারা বাড়ি যাচ্ছেন সবার নিরাপদ ভ্রমণ কামনা করছি।

যেসব রোগী ডেঙ্গু অথবা অন্য রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে আছেন সবার দ্রুত আরোগ্য কামনা করছি। ডাক্তারসহ অন্য সকল পেশাজীবী, যারা জরুরী দায়িত্বে আছেন, তাদের সকলের জন্য থাকছে ভালোবাসা ও শুভেচ্ছা। ঈদের দিন জরুরি সেবায় আমিও থাকবো আপনাদের পাশে।

ঈদে বাড়ি যাবার আগে যে বিষয়গুলো মনে রাখবেন

  • বালতি,মগ,হাঁড়ি-পাতিল,পানি রাখার ড্রাম ইত্যাদি শুকিয়ে উল্টো করে রেখে যাবেন।
  • গ্যাসের চুলা,পানির কল ভালো করে বন্ধ করে যেতে হবে। রেফ্রিজারেটরের প্রয়োজন না হলে বন্ধ করে যাবেন।
  • বাড়ি যাবার সময় প্রয়োজনীয় ঔষধ সংগে নিতে ভুলবেন না।
  • জ্বর নিয়ে বা অন্য অসুস্থতা নিয়ে বাড়ি যাবেন না।
  • মশারি ব্যবহার করতে হবে।

ডেঙ্গুর বিষয়ে বাড়তি সচেতনতা

এবারের ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব অন্যান্য বছরের তুলনায় বেশি। এমনকি এবছরের ডেঙ্গুর উপসর্গের মাঝেও রয়েছে কিছুটা ভিন্নতা। ফলে মৃত্যুঝুঁকি বেড়ে যাওয়ায় আতংকও বেশি।

মানুষ মশার চেয়েও শক্তিশালী – এ কথাও যেন নতুন করে শুনতে হচ্ছে আমাদের। শিশুরাও ভাবছে কমিক জগতের আয়রন ম্যান, থর, হাল্ক সাহেবরা যদি এক হয়ে অ্যাভেঞ্জারস ইনফিনিটি ওয়্যার কিংবা এন্ডগেম ছবির মতো আমাদের
এই গ্রহকে ডেঙ্গু থেকে বাঁচাতে পারতো!

বাংলাদেশে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব ২০০০ সাল থেকে হলেও পৃথিবীর অন্য প্রান্তে অনেক আগেই আক্রমণ করেছে এই ডেঙ্গু। মশাবাহিত রোগের মধ্যে ডেঙ্গু এতই অস্থিরতার পরিবেশ সৃষ্টি করেছিলো যে ২০০১ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে একটি রক/ পপ গানের ব্যান্ড দল তৈরি হয়েছিল যার নাম ছিল ” ডেঙ্গু ফিভার”।

ডেঙ্গু নিয়ে যত ভুল ধারণা

ডেঙ্গু একটি ভদ্র মশা, যা শুধু পরিস্কার পানিতে খেলা করে বংশ বিস্তার করে- এ কথা পুরোপুরি ঠিক নয়। Aedes Albbopictus কিন্তু জংলি আচরণও করতে পারে।

Aedes Aegypti হলো শহরের মশা, যারা সাধারণত দূর্গন্ধমুক্ত বদ্ধ পানির চারদিকে ডিম ছেড়ে বংশবিস্তার করে। তবে ভয়ংকর তথ্য হলো জীবানুযুক্ত ডিম শুকনো অবস্থায়ও প্রায় ২ বছর বেঁচে থাকতে পারে যা পরবর্তীতে অনুকূল পরিবেশে বংশবৃদ্ধি করতে পারে।

একটি গবেষণায় আছে, এডিস মশা দূর্গন্ধ অপছন্দ করলেও গরুর খাদ্য খড়ের মধ্যেও বংশবিস্তার করতে পারে। এক্ষেত্রে বৃষ্টি ভেজা খড়ের দুর্গন্ধেও এডিস মশার বংশবিস্তার করতে সমস্যা হয়না। তাই কোরবানির পর পশুর বর্জ্য পরিস্কারের পাশাপাশি, খড়সহ অন্যান্য উচ্ছিষ্ট খাদ্যবস্তুও পুরো এলাকা থেকে দ্রুততার সঙ্গে পরিস্কার করতে হবে।

আমাদের দায়িত্ব

যারা হাটের ইজারা নিয়েছেন তাদের দায়িত্ব হাট শেষ হলে ব্লিচিং পাউডার দিয়ে মাঠ বা রাস্তা পরিচ্ছন্ন রাখা। কেননা মাত্র ২ মিলি লিটার পানিতেই এডিস মশা ডিম পাড়তে পারে।

সবশেষে বলতে চাই, নির্ধারিত স্থান ছাড়া পশু কোরবানি করবেন না। নিজ দায়িত্বেই নিজের আশেপাশের স্থান পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। সেইসাথে বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগের দৃশ্যমান আস্থাশীল কর্মতৎপরতাও দেখতে পাবো বলে আশা করছি।

বি.দ্রঃ যারা এই ঈদে ত্যাগের মহিমায় উজ্জীবিত হয়ে দেশ এবং মানুষের পাশে থাকবেন তাদের সবাইকে ঈদ মোবারক।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.