Featured আফ্রিকা আমেরিকা ইউরোপ এশিয়া বাংলাদেশ থেকে সুস্থ থাকুন

কিশোর শরীরচর্চায় সব দেশকে ছাড়িয়ে শীর্ষে বাংলাদেশ!

শেয়ার করুন

প্রায়শই বলা হয় বর্তমান প্রজন্মের শিশু-কিশোররা অনেক অলস এবং শারীরিক পরিশ্রমের ক্ষেত্রে অনেক পিছিয়ে। কিন্তু এবার বাংলাদেশি শিশু-কিশোররা তাক লাগিয়ে দিয়েছে পুরো বিশ্বকে। সম্প্রতি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে জানা যায় পুরো বিশ্বে  খেলাধুলা বা শরীরচর্চায় সবচেয়ে এগিয়ে রয়েছে বাংলাদেশের কিশোররা।

এই তালিকার সবচেয়ে নিচে অবস্থান করছে দক্ষিণ কোরিয়া। গবেষণায় জানা গেছে, বিশ্বের প্রায় সব দেশেই ১১ হতে ১৭ বছর বয়সী শিশুরা শারীরিকভাবে সক্রিয় নয়। অর্থাৎ পর্যাপ্ত পরিমাণ শরীরচর্চা বা খেলাধুলায় অংশ নিতে বরাবরই অনাগ্রহী তাড়া।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এক জরিপে বলা হচ্ছে, কিশোরদের অলসতার বিষয়টি এখন প্রায় মহামারির রূপ নিয়েছে। যথেষ্ট শরীরচর্চার অভাবে শিশুদের স্বাস্থ্যের ক্ষতি হচ্ছে, তাদের মস্তিষ্কের বিকাশ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে এবং একইসাথে সামাজিক মেলামেশার দক্ষতাও কমছে।

দিনে অন্তত এক ঘণ্টা শরীরচর্চা বা কোনো ধরনের খেলাধুলায় অংশ না নিলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা তাকে ‘শারীরিক নিষ্ক্রিয়তা’ বলে গণ্য করে।

এই জরিপে অবাক করার মতো তথ্য হচ্ছে, শারীরিক সক্রিয়তার সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান সবচেয়ে ভালো। শারীরিক নিষ্ক্রিয়তার সমস্যা বাংলাদেশের শিশুদের মধ্যে তুলনামূলকভাবে সবচেয়ে কম।

জরিপে দেখা গেছে, দক্ষিণ কোরিয়ার মেয়েরা (৯৭%) এবং ফিলিপাইনের ছেলেরা (৯৩%) হচ্ছে শারীরিকভাবে সবচেয়ে নিষ্ক্রিয়। অন্যদিকে বাংলাদেশের শিশুদের মধ্যে এর হার ৬৬%। মোট ১৪৬টি দেশের ওপর এই জরিপ পরিচালিত হয়।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার জরিপে বলা হয়, শিশুদের শারীরিক নিষ্ক্রিয়তার এই সমস্যা আফগানিস্তান থেকে শুরু করে জিম্বাবুয়ে- কমবেশি সব দেশেই আছে। ১১ হতে ১৭ বছর বয়সীদের মধ্যে প্রতি পাঁচজনের মধ্যে চারজনই যথেষ্ট শরীরচর্চা করছে না, খেলাধুলা করছে না।

যেকোনো শারীরিক তৎপরতা, যাতে হৃৎস্পন্দন দ্রুততর হয় এবং ফুসফুসের মাধ্যমে আমাদের শ্বাস নিতে হয় ঘন ঘন, সেটাকেই হিসেবে ধরা হয়েছে। এর মধ্যে আছে দৌড়ানো, সাইকেল চালানো, সাঁতার কাটা, ফুটবল, লাফ দেয়া, স্কিপিং, জিমন্যাস্টিকস।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসাবে, প্রতিদিন অন্তত ৬০ মিনিট ধরে মধ্যম বা তীব্র মাত্রার শরীরচর্চা করা উচিত।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, সব দেশের সমস্যাটা একই রকম। বাংলাদেশের অবস্থান যদিও সূচকে বেশ ভালো, তারপরও সেদেশেও ৬৬ শতাংশ শিশু প্রতিদিন এক ঘণ্টা যে শরীরচর্চা বা শারীরিকভাবে সক্রিয় থাকার কথা, তা করছে না।

তবে এই তালিকায় ফিলিপাইন আর দক্ষিণ কোরিয়ার অবস্থা সবচেয়ে খারাপ। যুক্তরাজ্যে ৭৫ শতাংশ ছেলে এবং ৮৫ শতাংশ মেয়ে শারীরিকভাবে নিষ্ক্রিয়, অর্থাৎ তারা দিনে এক ঘন্টা ব্যায়াম করছে না।

  • সুমাইয়া হোসেন লিয়া, প্রবাস কথা, ঢাকা।
শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.