Featured বাংলাদেশ থেকে রঙ্গের দুনিয়া

হুমায়ূন আহমেদ; সাহিত্যের অনন্য কারিগরের ইতিকথা

শেয়ার করুন

পৃথিবীতে মানুষ যখন জন্মায় তখন তাদের আদৌত কোনো অধিকার থাকেনা। একজন সদ্যজাত শিশুটি হয়তো উপলব্ধিই করতে পারেনা সে কোথায় এসেছে বা কেন এসেছে। সেই যে শুরু, জীবনের চলমান এই ধারার শেষ বিন্দুতে যখন জীবন এসে ঠেকে তখনও মানুষ বুঝতে পারেনা কেন এই ধরণী তাকে বাহুডোরে আবদ্ধ করেছে।

একজন মানুষ, তাঁর হাতে থাকা কলমের জাদু দিয়ে পুরো জীবনের চিত্রই পালটে দিয়েছেন। কংক্রিটের এই জঞ্জালে ভরা শহুরে মানুষদের তিনি শিখিয়েছেন জোছনা কিভাবে উপভোগ করতে হয়, বৃষ্টিকে কি করে করতে হয় আলিঙ্গন কিংবা প্রকৃতির সান্নিধ্যে কি করে ফিরে যেতে হয় বার বার।

ভাবুন তো, একজন লেখকের তৈরি চরিত্র কতটা ভাল হলে একজন মানুষ তার নিজের জীবনের অস্তিত্ব ভুলে গিয়ে সেই চরিত্রকে ধারণ করতে চায়? হিমু, রূপা, মিসির আলী, শুভ্র এর মতো চরিত্রগুলো তো পাঠকের অন্তরে বাস করে। নতুন করে এদের কথা আর বলে দিতে হয়না। শঙ্খনীল কারাগার, নন্দিত নরকে, আমরা কেউ বাসায় নেই, অপেক্ষা এর মত ১৫০ থেকে ৩০০ পৃষ্ঠায় আবদ্ধ একটি বই আপনার অনুভূতি, চিন্তা-চেতনাকে বদলে দিতে যথেষ্ট।

শুধু কি বই? ‘আজ রবিবার’ নাটকের ‘মতি’ এর মত একজন কাজের লোকের চরিত্রই বলুন অথবা ‘কোথাও কেউ নেই’ এর মূল চরিত্র তথা বাকের ভাই এর কথাই বলুন না কেন কোনো চরিত্রকেই আপনি অপ্রয়োজনীয় বা কম গুরুত্বপূর্ণ বলতে পারবেন না। একটি ধারাবাহিক নাটকের প্রতিটি দৃশ্য, প্রতিটি সংলাপ এবং প্রতিটি পর্ব আপনার মনে গেঁথে থাকতে বাধ্য।

‘নয় নম্বর বিপদ সংকেত’ দেখে খুব হাসি পেলেও, আগুনের পরশমণি, শ্যামল ছায়ার মত চলচ্চিত্র দেখে ডুকরে কেঁদে উঠেছেন কয়েকবার তা উল্লেখ না করলেও চলবে।

একজন লেখকই নয়, একজন গীতিকার ও সুরকার হিসেবেও পরিচিত ছিলেন এই মানুষটি। ‘চাঁদনী পশর রাইতে যেন আমার মরণ হয়’, ‘যদি মন কাঁদে’ এর মত গানও তৈরি হয়েছে এই অসাধারণ ব্যক্তির হাতেই।

এই লেখকের একটি উল্লেখযোগ্য বইয়ের নাম ‘আমার ছেলেবেলা’। এই বইয়ের একটি অংশে লেখকের ছোটবোনকে উদ্দেশ্য করে লেখক ও তাঁর অন্যান্য ভাইবোনদের তাঁর বাবা বলেছিলেন,

‘আমার ছেলেবেলা’ বইয়ের অংশ

“তোমরা বড় হবার চেষ্টা করো। অনেক বড়,যাতে সারাদেশের মানুষ তোমাদের জন্মদিনের উৎসব করে। বাবা-মা’র করতে না হয়।”

আজ ১৩ই নভেম্বর এই সাহিত্যের জাদুকর ‘হুমায়ূন আহমেদ’ এর ৭১তম জন্মবার্ষিকী। আজ লেখক নেই, কিন্তু উৎসব চলছে পুরো দেশজুড়ে। এপারের ছেলেবেলা পেরিয়ে লেখক আজ অপারের অনন্তবেলায় অবস্থান করছে। শুভ জন্মদিন মায়া তৈরির কারিগর…‘‘নয়ন তোমারে পায়না দেখিতে, রয়েছো নয়নে নয়নে”

  • সুমাইয়া হোসেন লিয়া, প্রবাস কথা, ঢাকা।
শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.