Featured সুস্থ থাকুন

রমজানে সুস্থ থাকতে কিছু পরামর্শ

রমজান ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের জন্য অত্যন্ত পবিত্র মাস। এ সময় সংযম সাধনের পাশাপাশি সুস্থ ব্যক্তির অনেকেই রোজা রাখেন, আমাদের দেশে মানুষের মধ্যে রমজানে যে খাদ্যাভ্যাস লক্ষ্য করা যায়, তা পুরোপুরি স্বাস্থ্যসম্মত নয়।

এ সময়ে খাবারের প্রধান পর্যায় দুটি সেহরি ও ইফতার। তাছাড়া এবারের রমজান মাসে বেশি তাপমাত্রা  লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তাই খাবারে দিতে হতে বিশেষ নজর।

আমাদের দেশে সেহরি ও ইফতারের বেশির ভাগ খাবারই হচ্ছে উচ্চ চর্বিসমৃদ্ধ এবং তেলে ভাজা। সেহরি ও ইফতারের খাবার নির্বাচনে রোজাদারের বয়স ও শারীরিক অবস্থা বিবেচনায় রাখা হয় না। কিন্তু রোযায় খাবারে বিশেষভাবে খেয়াল রাখতে হবে।

তাই রমজানে সুস্থ থাকতে এবং পানিশূন্যতা দুর করতে কিছু পরামর্শ দেয়া হল-

১.সারাদিন রোজা রেখে অবশ্যই শরবত খাবেন। হতে পারে যেকোন ফলের জুস, যা সারাদিনের পানি শূন্যতা দূর করবে।
২.খেজুর দিয়ে ইফতার শুরু করুন। এর পটাসিয়াম আপনার ক্লান্তি দুর করে আপনার শরীরে শক্তি যোগাবে।
৩.আশ জাতীয় খাবার খান ফল , সবজী , রুটি , ভাত , ওটস হতে পারে। সেদ্ধ ছোলা খেতে পারেন। কোস্টকাঠিন্য দুর করার জন্য ইসবগুল , তোকমা , আলু, বোখারার জুস খেতে পারেন।
৪.প্রোটিন জাতীয় খাবার রাখুন হতে পারে ডিম, মাছ, মুরগী, ডাল , দুধ।
৫. যারা দুধ খেতে পারেন না তারা দই খেতে পারেন।
৬, রাতের মেনু রুটি , ভাত ,সবজী, ডাল বা মাছের পাতলা ঝোলের কারী হতে পারে।
৭. সেহরীতে চিড়া ,দই , কলা , আম বা ভাত , মুরগী বা মাছ অল্প মসলায় খেতে পারেন।
৮. ইফতার থেকে সেহরী পর্যন্ত ৮-১০ গ্লাস পানি খান।
৯. চা , কফি আপনাকে ডিহাইড্রেট করবে তাই এই সময় এধরবের খাবার এড়িয়ে চলুন।
১০.লবনাক্ত ও মসলাদার খাবার কম খান এতে আপনার পিপাসা বেড়ে যেতে পারে।

সবাই ভাল থাকুন, সুস্থ থাকুন।

  • পুষ্টিবিদ ডা: নুর ই জান্নাত ফাতেমা  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.