Featured বাংলাদেশ থেকে

“জানাজায় আসার মত ৫ মিনিট সময় হলোনা স্যার?”

শেয়ার করুন

রবিবার দিবাগত রাত ৩ টায় শের-এ-বাংলা হল থেকে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। আবরারকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় সোমবার সকাল থেকেই একের পর এক প্রতিবাদ আসতে থাকে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে শুরু করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকেও।

কিন্তু এত বড় একটি ঘটনা ঘটার পরও শিক্ষার্থীদের সামনে আসেননি বুয়েটের উপাচার্য (ভিসি) অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম। আজ মঙ্গলবার সারাদিন আন্দোলন করে বুয়েটের শিক্ষার্থীরা। তারা দাবি করে বিকেল ৫ টার মধ্যে যেন ভিসি তাদের সামনে উপস্থিত হন এবং এই হত্যাকান্ডের বিষয়ে কথা বলেন।

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের তোপের মুখে শিক্ষকদের সঙ্গে বৈঠক শেষে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলতে আসেন ভিসি। পরে ভিসি ভবনের সামনে তাকে প্রায় ৪০ মিনিট অবরুদ্ধ রেখে প্রশ্নবাণে জর্জরিত করতে থাকেন বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা।

বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের ৪০ ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও কেন তিনি হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সামনে আসেননি, কেন তার ছেলের (ভিসি বুয়েটের সর্বোচ্চ অভিভাবক) জানাজায় উপস্থিত হননি, কেন ক্যাম্পাসে দাঙ্গা পুলিশ চড়াও হলো- একের পর এক প্রশ্ন করে ভিসির কাছে উত্তর জানতে চান শিক্ষার্থীরা।

এ সময় ভিসি কাউকে বুকে জড়িয়ে, কাউকে নাম ধরে কাছে ডেকে আবার কাউকে অভিভাবক হয়ে কিছুটা শাসনের সুরে শান্ত করার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন।

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন,

‘তোমাদের সব দাবি নীতিগতভাবে মেনে নিয়েছি। তাৎক্ষণিকভাবে সব সমস্যার সমাধান সম্ভব নয়। তোমাদের প্রতিনিধি হিসেবে কয়েকজনের সাথে বসে আলোচনা করে সমস্যার সমাধান করতে হবে। তোমরা আলটিমেটাম তুলে নাও।’

এ সময় বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের একজন বলেন,

‘আপনার ছেলেকে (আবরার ফাহাদ) হত্যা করা হলো আর আপনি জানাজা পড়ার মতো পাঁচ মিনিট সময় পেলেন না কেন?’

এর উত্তরে ভিসি বলেন, তিনি ওই সময় সরকারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রীসহ অনেকের সাথে কথা বলায় ব্যস্ত ছিলেন।

এ সময় শিক্ষার্থীদের একজন ভিসিকে বলেন,

‘স্যার, আপনার কাছে শিক্ষার্থীদের অনেক প্রশ্ন। দু-একজন প্রশ্ন করবে, কিন্তু এসব প্রশ্ন উপস্থিত সবার।

শিক্ষার্থীরা বলেন,

‘প্রতিনিধি গেলেও যা বলবেন তা মিডিয়ার সামনে করতে হবে, বলতে হবে।’

এ সময় ভিসি বলেন,

‘এভাবে সমস্যার সমাধান হবে না। আমি বলছি নীতিগতভাবে তোমাদের সব দাবি মেনে নিয়েছি। সব সমস্যার সমাধান তার একার পক্ষে করা সম্ভব নয়। সরকারের সাথে আলোচনার প্রয়োজন আছে।

ভিসির সাথে সাক্ষাতে সন্তুষ্ট না হয়ে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার কথা জানিয়েছে বুয়েটের শিক্ষার্থীরা।

  • সুমাইয়া হোসেন লিয়া, প্রবাস কথা, ঢাকা।

আরও পড়ুন-  আবরার হত্যা; সাত দফা দাবী, কি বলছেন শিক্ষার্থীরা?

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.