Featured ইউরোপ ইতালী

অবশেষে চিকিৎসার জন্য ইতালিতে সেই প্রবাসী শিশু

শেয়ার করুন

দীর্ঘ সাত মাস কোমায় থাকার পর আইনি লড়াই শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য লন্ডন থেকে ইতালিতে এসে পৌঁছেছে পাঁচ বছর বয়সী বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত তাফিদা রাকিব। মঙ্গলবার সকালে লন্ডন থেকে এয়ার এ্যাম্বুলেন্সে লাইফ সাপোর্ট অবস্থায় ইতালিতে আনা হয় তাকে।এর আগে  লন্ডনে বেলুন উড়িয়ে তাফিদাকে বিদায় জানান স্থানীয়রা।

আসার পর থেকেই ইতালির জেনোয়ার গ্যাসোলিন চিলড্রেন হাসপাতালে তার চিকিৎসা শুরু হয়েছে বলে জানান তাফিদার বাবা মোহাম্মদ রাকিব। এছাড়াও ইতালির প্রধানমন্ত্রী জুসেপ্পে কন্তে খুব শীঘ্রই তাফিদাকে দেখতে হাসপাতালে আসবেন বলেও জানান তাফিদার বাবা।

চলতি বছরের ৯ ফেব্রুয়ারি সকালে ঘুম থেকে উঠার পর মাথায় প্রচণ্ড ব্যাথা অনুভব করে তাফিদা। কিছুক্ষন পর সে জ্ঞান হারিয়ে ফেললে লন্ডনের নিউ হ্যাম হাসপাতালে নেয়া হয় তাকে। এরপর ডাক্তাররা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে জানতে পারে তাফিদার ব্রেইন মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাফিদাকে লন্ডনের রয়েল হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। পরে সেখানে তার মাথায় অপারেশন করা হলে সেই থেকে এখন পর্যন্ত দীর্ঘ সাত মাস যাবত তাফিদা গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন অর্থাৎ কোমায় রয়েছে।

তাফিদার সুস্থ হবার কোন সম্ভাবনা নেই বলে কর্তব্যরত চিকিৎসকেরা তাফিদার লাইফ সাপোর্ট খুলে নেয়ার অনুমতি চাইলে তার বাবা-মা আদালতে মামলা করে তাফিদাকে ইতালি নিয়ে চিকিৎসা করানোর অনুমতি চান। কিন্তু তাফিদাকে ইতালি নেয়ার মত অবস্থা নেই বলে জানান চিকিৎসকেরা।

এদিকে তাফিদার পক্ষে লন্ডনের বিভিন্ন রাস্তায় মানববন্ধন করতে থাকে ব্রিটেনের বিভিন্ন মানবাধিকার ও সামাজিক সংস্থা। অবশেষে ১৩ সেপ্টেম্বর ব্রিটেন আদালতে যুক্তিতর্ক শেষে ৩ অক্টোবর আদালত তাফিদাকে ইতালি নিয়ে যাওয়ার অনুমতি দেয়।

তাফিদার উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রায় ৪০০ হাজার পাউন্ড প্রয়োজন। এজন্য তাফিদার মা-বাবা সবার কাছে অর্থ সাহায্যের আবেদন জানান। এছাড়াও ব্রিটেনের বেশকয়েকটি সংস্থা ‘সেফ তাফিদা’ নামক একটি ফেসবুক গ্রুপ চালু করে অর্থ সংগ্রহের কাজ করছেন বলে জানান তাফিদার মা সেলিনা বেগম। এছাড়াও তাফিদাকে যেন ইতালিয়ান নাগরিকত্ব দেয়া হয় সেজন্য স্থানীয় সকারের কাছে আবেদন করেছেন বলেও জানান তার মা।

তাফিদার গ্রামের বাড়ি সিলেটের বালাগঞ্জ উপজেলায়। বাবা মোহাম্মদ রাকিব একজন কন্সট্রাকশন কনসালটেন্ট এবং মা সেলিনা বেগম একজন আইনজীবী। তাফিদা মা-বাবার সাথে লন্ডনে বসবাস করতেন।

  • প্রতিবেদন- সাইফুল ইসলাম মুন্সী, ইতালি

আরও পড়ুন- সৌদি আরব প্রবাসীদের ভোটার করার কাজ শুরু

প্রবাসীদের সব খবর জানতে; প্রবাস কথার ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.