গ্রিস

গ্রীসের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিরোধী দলের বিজয়

গত সাত জুলাই (রবিবার) গ্রীসের জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এই নির্বাচনে ক্ষমতাসীন ‘সিরিজা পার্টি’র প্রধানমন্ত্রী আলেক্সিস সিপরাশকে বিশাল ব্যবধানে রক্ষণশীল নিউ ডেমোক্রেসি পার্টির প্রধান কিরিয়াকোস মিতসোতাকি পরাজিত করে। নিউ ডেমোক্রেসি পার্টি ৩০০ আসনের মধ্যে ১৫৮ টি আসনে জয় লাভ করে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে ৷

সরকারি ভাবে আট জুলাই সকাল ১০ টায় জাতীয় সংসদ নির্বাচনী ফলাফল ঘোষণা করা হয়। নির্বাচনী ফলাফল অনুযায়ী নিউ ডেমোক্রেসি পার্টি ৩৯.৮৭% ভোট পেয়ে ৩০০ আসনের মধ্যে ১৫৮ টি আসনে জয়ী হয়ে সরকার গঠনের প্রস্তুতি নিচ্ছে। অপরদিকে ক্ষমতাসীন সিরিজা পার্টি ৩১.৫৩% ভোট পেয়ে ৩০০ আসনের মধ্যে ৮৬ টি আসনে বিজয়ী হয়ে সংসদে প্রধান বিরোধী দলের ভুমিকা পালন করবে।

তবে এবারের নির্বাচনে লক্ষণীয় ছিল অভিবাসন বিরোধী চরম ডানপন্থি “গোল্ডেন ডাউন” রাজনৈতিক দলের শোচনীয় পতন, নির্বাচনে তারা মাত্র ২.৯৭% ভোট পেয়েছে এবং একটিও সংসদীয় আসন লাভ করতে পারেনি পক্ষান্তরে ২০১২ এবং ২০১৫ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তাদের উথান ছিল লক্ষণীয় ৭.৪৭% ভোট পেয়ে ১৮ টি সংসদীয় আসন লাভ করেছিল। তাদের ব্যাপক উগ্রপন্থী কর্যক্রমের এবং অভিবাসন বিরোধী মনোভাবের জন্য গ্রীসের সাধারণ জনগন তাদের প্রত্যাখান করেছে বলে বলা হচ্ছে ৷

আগামীকাল ঢাকায় আসছেন নেদারল্যান্ডসের রাণী ম্যাক্সিমা

প্রকৃতপক্ষে দেশটির “জাতীয় সংসদ নির্বাচন” অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল চলতি বছরের অক্টোবর মাসে কিন্তু গত ২৬ মে অনুষ্ঠিত স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দল শোচনীয় ভাবে পরাজিত হয়। অপরপক্ষে বিরোধী দল স্থানীয় সরকার নির্বাচনে নিরঙ্কুশ ভাবে বিজয় লাভ করার ফলে প্রেসিডেন্ট এর কাছে আগাম সংসদ নির্বাচনের দাবি জানায়। প্রেসিডোন্ট বিরোধী দলের প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করেন তবে প্রধানমন্ত্রী যদি বিরোধী দলের দাবিতে সম্মতি প্রদান না করেন তাহলে আগাম নির্বাচন সম্ভব না ।
কিন্তু প্রধানমন্ত্রী আলেক্সিস সিপরাশ স্থানীয় সরকার নির্বাচনে পরাজয়ের পর জনগনের মতামত এবং বিরোধী দলের দাবিকে গুরুত্বের সহিত বিবেচনা করে প্রেসিডেন্টের কাছে আগাম নির্বাচনের সম্মতি পকাশ করেন।

ফলে গত সাত জুলাই জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় এবং নিউ ডেমোক্রেসি নির্বাচনে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে। নিউ ডেমোক্রেসি পার্টির প্রধান এবং নব নির্বাচিত গ্রীসের প্রধানমন্ত্রী কিরিয়াকোস মিতসোতাকি তাঁর বিজয় ভাষণে বলেছেন-

“আজকে থেকে নতুন চ্যালেঞ্জ শুরু হয়ে গেল, আমি বিশ্বাস করি আমারা এই অর্থনৈতিক মন্দা খুব দ্রুত কাটিয়ে উঠবো।”

তিনি আরও বলেন, আমি আমার নির্বাচনী ইশতিহার অনুযায়ী, ট্যাক্স কমানে, নতুন বিনিয়োগকারী অনুসন্ধান এবং বেকার সমস্যা দূরীকরণে দ্রুত কাজ শুরু করবো।

মুহম্মাদ আল আমিন, গ্রীস প্রতিনিধি

তবে কি ২ বছরের জন্য নিষেধাজ্ঞার কবলে পড়ছেন মেসি?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.