বাংলাদেশ থেকে

রোহিঙ্গাদের জন্য কাঁদলেন নোবেল বিজয়ী দুই নারী

মিয়ানমারের রাখাইনে সেনাবাহিনী ও উগ্র বৌদ্ধদের নির্মম নির্যাতনের পর পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীদের দুঃখ-দুর্দশার কথা শুনে কেঁদেছেন ইয়েমেনের নোবেল বিজয়ী তাওয়াক্কুল কারমান ও উত্তর আয়ারল্যান্ডের নোবেল জয়ী মেরেইড ম্যাগুয়ার।

কক্সবাজারের উখিয়ায় রোববার বিকালে মধুছড়া ক্যাম্প ঘুরে সেখানকার রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলেন এ দুই নোবেল বিজয়ী। তাদের বিভিন্ন দুঃখ-কষ্টের কথা শোনে তারা একপর্যায়ে আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়েন, এক পর্যায়ে তাদের কেঁদে ফেলেন।

পরে সাংবাদিকদের সঙ্গে এক ব্রিফিংয়ে মেরেইড ম্যাগুয়ার বলেন, গত ২৫ আগস্টের পর থেকে এ পর্যন্ত রাখাইনে যে নৃশংস হত্যাকাণ্ড, ধর্ষণ ও অমানবিক নিষ্ঠুরতা চলছে, মিয়ানমার সরকার কখনই তার দায় এড়াতে পারে না।

Tawakkol Karman Mairead Maguire2

আয়ারল্যান্ডের এ নোবেল বিজয়ী বলেন, ‘অং সান সু চি শান্তিতে নোবেল বিজয়ী হয়েও তার সামরিক বাহিনী গত ছয় মাস সে দেশে বসবাসরত রোহিঙ্গাদের বাড়িঘরে আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দিয়েছে। আর সেই আগুনে শিশুদের নিক্ষেপ করার মতো জঘন্যতম অপরাধ করেছে। তাদের সেনা, পুলিশ, উগ্রপন্থী বৌদ্ধদের লোমহর্ষক ঘটনা বিশ্ববাসী দেখেছে। ইতিহাসে এমন ঘটনা নজিরবিহীন।

নোবেল বিজয়ী মেরেইড ম্যাগুয়ার বলেন, ‘মিয়ানমার সেনারা রোহিঙ্গাদের ওপর যে নিষ্ঠুর নির্যাতন চালিয়েছে তা গণহত্যা, এতে কোনো সন্দেহ নেই। জাতিগত নিধনের মতো এ নৃশংস ঘটনার দায়ে আন্তর্জাতিক আদালতে বিচারের ব্যবস্থা করতে হবে।’

নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের সহায়তায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আরও সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানিয়ে ইয়েমেনের নোবেল বিজয়ী তায়াক্কুল কারমান বলেন, ‘সু চির এখনই পদত্যাগ করা উচিত।রোহিঙ্গা নারীদের যেভাবে ধর্ষণ, নিপীড়ন ও নির্যাতন করা হয়েছে, এজন্য অং সান সু চি ও তার সরকারের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক আদালতে বিচার হওয়া উচিত। জাতিসংঘের উচিত এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া।

Tawakkol Karman

এদিকে বিশাল রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে আশ্রয়সহ মানবিক সহায়তা দেয়ার জন্য বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ স্থানীয়দের প্রতি কৃতজ্ঞতাও জানান নোবেল বিজয়ী নারীরা।

 

  • প্রবাস কথা ডেস্ক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.