Featured বাংলাদেশ থেকে

বিমান দুর্ঘটনায় মৃত্যুতে ক্ষতিপূরণ ১ কোটি ৪০ লাখ টাকাঃ মন্ত্রিপরিষদ সচিব

শেয়ার করুন

মন্ত্রিসভার পক্ষ থেকে আকাশপথে যাত্রী এবং যাত্রীদের মালামালের সুরক্ষায় ক্ষতিপূরণের বিষয়ে একটি আইনের খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দেয়া হয়েছে।আকাশপথে পরিবহন (মন্ট্রিল কনভেনশন, ১৯৯৯) আইন, ২০১৯নামে খসড়া আইনটি মন্ট্রিল কনভেনশন অনুযায়ী তৈরি করা হয়েছে

নতুন এই আইন কার্যকর হলে দুর্ঘটনায় নিহতদের পরিবার প্রায় ১ কোটি ৪০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ হিসেবে পাবেন। আজ সোমবার নিজ কার্যালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে গণমাধ্যমকে একথা জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম।

নেপালের ইউএস-বাংলার উড়োজাহাজ দুর্ঘটনার ক্ষতিপুরণের কথা মনে করিয়ে দিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব শফিউল আলম বলেন,

তারা যে ক্ষতিপূরণ পেয়েছে তা খুবই সামান্য। এটা মন্ট্রিল কনভেনশনের আওতায় হলে অনেকগুণ বেশি হত। কমপক্ষে জনপ্রতি এক কোটি ৪০ লাখ টাকার মত পেতেন। কিন্তু সেটা পাননি, ১২ হাজার ডলারের মতো পেয়েছেন।’

তিনি আরও বলেন,

‘আইনের মূল ফোকাসটা হচ্ছে বিমানযোগে যাত্রী, ব্যাগেজ ও কার্গো পরিবহন- এগুলোর ক্ষেত্রে মৃত্যু বা ক্ষয়ক্ষতির ক্ষেত্রে আমরা যেন প্রতিকার পেতে পারি।’

পুরো বিশ্বে বেসামরিক বিমান পরিবহন ব্যবস্থা ১৯৯৯ সালের আগে পরিচালিত হতো ওয়ারশ কনভেনশন দিয়ে। এরপর মন্ট্রিল কনভেনশনের মাধ্যমে বিমান পরিবহন কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব এবং যাত্রীর সুরক্ষা ও ক্ষতিপূরণ নিশ্চিত করার ব্যবস্থা হয়। বাংলাদেশ ২০০৩ সালে মন্ট্রিল কনভেনশনে সই করলেও তা সক্রিয় করার জন্য রাষ্ট্রীয় অনুমোদন না দেওয়ায় ক্ষতিপূরণের পরিমাণ নির্ধারিত হত পুরনো ওয়ারশ কনভেনশন অনুযায়ী।

পূর্বে এই আইন না থাকায় এতোদিন দুর্ঘটনার কবলে পড়া ব্যক্তিদের এই সুবিধা দেয়া যায়নি বলেও জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

  • সুমাইয়া হোসেন লিয়া, প্রবাস কথা, ঢাকা।
শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.