লিবিয়া

ভূমধ্যসাগরে অভিযান; ৬৫ বাংলাদেশীসহ ১৪৭ ইউরোপের যাত্রী আটক

ভূমধ্যসাগরে অভিযান চালিয়ে লিবিয়া উপকুল থেকে ৬৫ জন বাংলাদেশীসহ ১৪৭ জন অভিবাসীকে আটক করেছে লিবিয়ান কোষ্টগার্ট। আটককৃতদের লিবিয়ার হাসসা মূত্রত নামক আশ্রয়কেন্দ্রে রাখা হয়েছে। মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে আটককৃত বাংলাদেশীদের ছাড়িয়ে নিতে ইতিমধ্যে বেশ কয়েকজন বাংলাদেশী দালাল দরকষাকষি শুরু করেছে। জানা গেছে, লিবিয়ার সাব্রাতা জোয়ারা এলাকা থেকে গত শুক্রবার রাতে ৬৫ জন বাংলাদেশীসহ ২টি নৌযান ১৪৭ জন যাত্রী নিয়ে ইউরোপের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। বোট ২টি ছেড়ে যাওয়ার পর, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কিছুক্ষণের মধ্যেই হাসসা মুত্রুতে থাকা লিবিয়ান কোষ্টগার্ট স্পিড বোট নিয়ে ধাওয়া করে বোট ২টিকে ধরে ফেলে। পরে ঐ বোটের তিউনিয়ান নাবিকসহ সব যাত্রীদের আটক করে নিয়ে আসে। আটকৃতদের মধ্যে ৬৫ জন বাংলাদেশী ছাড়াও ঘানা, তিউনিশিয়ান, সিরিয়ান, সুদানী আছে বলে জানা গেছে।

এখানে ক্লিক করুন, প্রবাস কথার সাথে থাকুন

লিবিয়ার হাসসা এলাকায় বসবাসরত কয়েকজন বাংলাদেশী জানান, আটককৃতদের ছাড়িয়ে নিতে লিবিয়ায় সপরিবারে বসবাসকারী চিহ্নিত দালাল জিয়া ওরফে পিসি জিয়া দূতাবাসের প্রতিনিধি পরিচয় দিয়ে ঐ আশ্রয়কেন্দ্র থেকে বাংলাদেশীদের ছাড়িয়ে নিয়ে তার ভাড়া করা গোডাউনে আটকে রাখে। পরে প্রত্যেকের কাছে ৮০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকা দাবি করছে। যারা তার দেয়া বিকাশ নম্বরে টাকা দিতে পারবে তারা তত দ্রুত দালাল জিয়ার কবল থেকে মুক্তি পাবে। ইতিমধ্যে আটক বাংলাদেশীদের অনেকেই ঐ দালালের দেয়া বিকাশ নম্বরে টাকা দিয়ে ছাড়া পেয়েছে এবং যারা ছাড়া পেয়েছে তাদের টাকা দেয়ার বিষয়টি কাউকে না জানানোর জন্য হুমকিও দেয়া হয়েছে। এখনো বেশ কয়েকজন গোডাউনে ছাড়া পাওয়ার অপেক্ষায় আছে।

স্থানীয় সূত্রটি আরো জানায়, হাসসা মুত্রত ( লিবিয়ান কোষ্টগার্ট ) অভিযান চালিয়ে যখনই অভিবাসীদের আটক করে ঐ আশ্রয় কেন্দ্রে থাকা বাংলাদেশী দালাল সাইফুল ও স্থানীয় বসবাসকারী আরেক দালাল জিয়া বাংলাদেশ দূতাবাসের প্রতিনিধি পরিচয়ে আটকৃতদের ছাড়িয়ে নিয়ে নিজেদের নিয়ন্ত্রনে রেখে প্রত্যেকের কাছে মোটা অংকের টাকা দাবি করে। আটক যাত্রীদের মধ্যে যারা যত দ্রুত দেশে টাকা দিতে পারে তাদের লিবিয়া থেকে মুক্তি মেলে। অপরদিকে যারা টাকা দিতে বিলম্ব করে তাদের কপালে জোটে আমানুষিক নির্যাতন।

Orpon Mahmud

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.